২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১২:০৫
২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১২:০৫

, ,

সেমিনার:- বাংলাদেশের জয়যাত্রা: বঙ্গবন্ধু থেকে বঙ্গবন্ধু কন্যা

বঙ্গবন্ধু থেকে বঙ্গবন্ধু কন্যা পরম্পরার এক সার্থক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত-বলেছেন মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

 

২৭ সেপ্টেম্বর, বুধবার ঢাকার সিরডাপ মিলনায়তনে একটি গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই মন্তব্য করেন।

নো মাইনরিটি দর্শন নিয়ে পথ চলা সম্প্রীতি বাংলাদেশ আয়োজিত ‘বাংলাদেশের জয়যাত্রা:বঙ্গবন্ধু থেকে বঙ্গবন্ধু কন্যা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জাতিসংঘে প্রদত্ত ভাষণের দিনটি স্মরণ করে এবং ২৮ সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে সিরডাপ মিলনায়তনে গোলটেবিল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।সভায় সভাপতিত্ব করেন সম্প্রীতি বাংলাদেশের আহ্বায়ক পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং সঞ্চালনা করেন সংগঠনের সদস্য সচিব ডা: মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল। আরো বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক নিজামুল হক ভুঁইয়া,বাংলাদেশ ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ,বাংলাদেশ পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক চন্দ্রনাথ পোদ্দার,বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ভিক্ষু সুনন্দ প্রিয়,বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের প্রচার সম্পাদক ডা:মাহবুবুর রহমান বাবু,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অসীম সরকার।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন,বঙ্গবন্ধু শুরু করেছিলেন কন্যা শেখ হাসিনার হাতে তা বিকশিত হয়ে বাস্তবায়িত হচ্ছে।বঙ্গবন্ধু যে আধুনিক প্রযুক্তি শুরু করেছিলেন আজ তাই ডিজিটাল বাংলাদেশ,ভবিষ্যতের স্মার্ট বাংলাদেশ।বঙ্গবন্ধু যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করে ছিলেন আর তাঁরই কন্যা শেখ হাসিনা একই ধারাবাহিকতায় শেষ করেছেন। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা একজন আজন্ম লড়াকু যোদ্ধা।তিনি অবিরাম জেগে আছেন বলেই বাংলাদেশ

নিশ্চিতে ঘুমাতে পারছে।প্রতিকূল পরিবেশে লড়াকু শেখ হাসিনা যুদ্ধ করেই আজকের অবস্থায় এসেছেন।জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশে এসেছিলেন বলেই বাংলাদেশ আজ উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিনত হয়েছে।যারা লাল সবুজ পতাকার বদলে চাঁন তারা পতাকা চায়,সেই অসুর শক্তি আবারও আগামী নির্বাচনকে ঘিরে ছোবল মারতে উদ্ধত,শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ ভাবে তাদেরকে প্রতিহত করতে হবে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্য বক্তারা আরো বলেন,বঙ্গবন্ধু যেমন একটি দর্শন, একটি আদর্শ ঠিক তেমনি শেখ হাসিনাও একটি দর্শন,আদর্শের নাম।বঙ্গবন্ধু জন্ম না নিলে বাংলাদেশ হতো না,ঠিক তেমনি শেখ হাসিনা না থাকলে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা,অবিশ্বাস্য উন্নয়ন হতো না।বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিহিত আগে বলেই দেশে কেউ সংখ্যালঘু নয়।আগামী নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে আবারও ক্ষমতায় আনার জন্য সকলকে ঐক্যবন্ধ ভাবে কাজ করার আহ্বান জানান বক্তারা।

 

আরও পড়ুন..