২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১০:৩৬
২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১০:৩৬

অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল

এমবিবিএস, এমএসসি (গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি)(লন্ডন), এমডি (হেপাটোলজি)
এফআইসিপি, এফআরসিপি (আয়ারল্যান্ড), এফআরসিপি (লন্ডন), এফবাস, পিএইচডি (ইউনিভার্সিটি অব মালয়া)
ডিভিশন প্রধান, ইন্টারভেনশনাল হেপাটোলজি ডিভিশন
ও সাবেক চেয়ারম্যান, হেপাটোলজি বিভাগ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়
ও ভিজিটিং প্রফেসর, ডিপার্টমেন্ট অব গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি এন্ড মেটাবোলজি
এহিমে ইউনিভার্সিটি গ্র্যাজুয়েট স্কুল অব মেডিসিন, মাতসুমাইমা, জাপান
ও মেম্বার, বোর্ড অব স্টাডিজ, ডিপার্টমেন্ট অব গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি
অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল সাইন্সেস ঋষিকেশ, উত্তরখান্ড, ভারত
ও সদস্য
স্ট্র্যাটেজিক এন্ড টেকনিক্যাল এডভাইজারি গ্রুপ ভাইরাল হেপাটাইটিস, এইচআইভি এবং সেক্সচুয়ালী ট্রান্সমিটেড ইনফেকশন ডিজিজ, দক্ষিন-পূর্ব এশীয় অঞ্চল, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

 

অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল) ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে ১৯৯৫ সালে এম.বি.বি.এস. ১৯৯৮ সালে লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিতে এম.এস.সি. এবং ২০০৬ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হেপাটোলজিতে এম.ডি. ডিগ্রী অর্জন করেন। অধ্যাপক মাহতাব মালয়েশিয়ার ইউনিভার্সিটি অব মালয়া থেকে ২০২২ সালে মেডিসিনে পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি ইন্ডিয়ান কলেজ অব ফিজিসিয়ানস, রয়েল কলেজ অব ফিজিশিয়ানস অব আয়ারল্যান্ড এবং রয়েল কলেজ অব ফিজিশিয়ানস অব লন্ডন এবং বাংলাদেশ একাডেমি অব সাইন্সেসের ফেলো।

বর্তমানে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারভেনশনাল হেপাটোলজি ডিভিশনের প্রধান হিসাবে কর্মরত আছেন। তিনি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের হেপাটোলজি বিভাগের সদ্য-সাবেক চেয়ারম্যান।

পাশাপাশি অধ্যাপক স্বপ্নীল জাপানের এহিমে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি ও মেটাবোলজি বিভাগের ভিজিটিং অধ্যাপক এবং ভারতের অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল সাইন্সেস, ঋষিকেশের গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি বিভাগের বোর্ড অব স্টাডিজের সদস্য।

অধ্যাপক স্বপ্নীল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিন-পূর্ব এশীয় অঞ্চলের ভাইরাল হেপাটাইটিস, এইচআইভি এবং সেক্সচুয়ালী ট্রান্সমিটেড ইনফেকশন ডিজিজ সংক্রান্ত স্ট্র্যাটেজিক এন্ড টেকনিক্যাল এডভাইজারি গ্রুপের অন্যতম সদস্য।

তিনি মালয়েশিয়ার ইউনিভার্সিটি অব মালায়া, ইরানের তেহরান ইউনিভার্সিটি, ভারতের ইউনিভার্সিটি অব মাদ্রাজ ও ড. এপিজে আবুল কালাম টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি এবং বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচডি সুপারভাইজার ও পরীক্ষক।

অধ্যাপক স্বপ্নীল এশিয়ান প্যাসিফিক এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব লিভারের হেপাটাইটিস বি, হেপাটাইটিস সি, হেপাটাইটিস বি ইন প্রেগনেন্সি, একিউট অন ক্রনিক লিভার ফেইলিউর, লিভার ফাইব্রোসিস, বাডচিয়ারি সিন্ড্রোম, এম.এ.এফ.এল.ডি. এন্ড রিক্স অব সিকেডি, নন-সিরোটিক পোর্টাল হাইপারটেনশন এবং কোভিড-১৯ সংক্রান্ত গাইডলাইন কমিটিগুলোর সদস্য। তিনি সাউথ এশিয়ান এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভার-এর নেম চেঞ্জ অব এন.এ.এফ.এল.ডি. টু এম.এ.এফ.এল.ডি. ওয়ার্কিং পার্টির সদস্য। পাশাপাশি তিনি ইউরোপিয়ান এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব লিভারের এন.এ.এফ.এল.ডি./ন্যাশ সংক্রান্ত আঞ্চলিক বিশেষজ্ঞ প্যানেলেরও সদস্য এবং সংগঠনটির গ্লোবাল এন.এ.এফ.এল.ডি. পলিসি রিভিউর বাংলাদেশ লিড।

তিনি একাধিক ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে প্রধান গবেষক হিসাবে কাজ করেছেন। এর অন্যতম হচ্ছে, হেপাটাইটিস বি ভাইরাসের থেরাপিউটিক ভ্যাকসিন ন্যাসভ্যাকের ফেইজ ১, ২ ও ৩ ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল। তার গবেষণালব্ধ ফলাফলের ভিত্তিতে ওষুধটি এরই মধ্যে কিউবাসহ একাধিক দেশে রেজিষ্ট্রেশন পেয়েছে এবং বাংলাদেশের ড্রাগ কন্ট্রোল কমিটি ওষুধটির রেসিপি অনুমোদন করেছে। সম্প্র্রতি জাপানে ওষুধটির ফেজ-২ ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সম্পন্ন হয়েছে। অধ্যাপক স্বপ্নীল বাংলাদেশে উদ্ভাবিত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেট বঙ্গভ্যাক্সের নন-প্রাইমেট ও ফেজ-১ ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল দুটিরও প্রধান গবেষক।

অধ্যাপক স্বপ্নীল এদেশের ঐতিহ্যবাহী ঔষধী গুনসম্পন্ন কিছু গাছ-গাছালিকে বৈজ্ঞানিক ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত করার কাজ করছেন। ইতিমধ্যে লিভার ক্যান্সার রোগীদের উপর যষ্ঠী মধু দিয়ে পরিচালিত একটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। অধ্যাপক স্বপ্নীল বর্তমানে কালমেঘ, আমলকী, অর্জুন, কাটা গেইদলে এবং সাজনা নিয়ে ফ্যাটি লিভার ও লিভার ক্যান্সারে কাজ করছেন। এই সমস্ত গবেষণার জন্য অধ্যাপক স্বপ্নীল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ, ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব বায়োটেকনোলজি, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট এবং ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির সাথে বৈজ্ঞানিক কোলাবোরেশন প্রতিষ্ঠা করেছেন।

বিভিন্ন দেশী-বিদেশী বৈজ্ঞানিক জার্নালে অধ্যাপক স্বপ্নীলের ৩৪৫টির বেশি গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। চলমান কোভিড-১৯ প্যান্ডেমিকের সময় তার এ সংক্রান্ত ২৬টি গবেষণা প্রবন্ধ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া দেশী-বিদেশী বৈজ্ঞানিক সম্মেলনে তিনি ৩৫০টিরও বেশি লেকচার প্রদান করেছেন।

অধ্যাপক স্বপ্নীল এ পর্যন্ত ৫টি লিভার বিষয়ক টেক্সট বই সম্পাদনা করেছেন যার প্রতিটি বিভিন্ন খ্যাতনামা আন্তর্জাতিক মেডিকেল প্রকাশনা সংস্থা প্রকাশ করেছে। এগুলো হচ্ছে ‘লিভার ঃ এ কমপ্লিট বুক অক হেপাটো-প্যানক্রিয়াটো-বিলিয়ারী ডিজিজেজ’ (প্রকাশকঃ এলসেভিয়ের, প্রকাশকালঃ ২০০৯), ‘কম্প্রিহেনসিভ টেক্সট বুক অব হেপাটাইটিস বি’, ‘টেক্সট বুক অব হেপাটোগ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি’ ও ‘হেপাটোগ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি প্রেসক্রাইবার’ (প্রকাশকঃ জেপি ব্রাদার্স, প্রকাশকাল যথাক্রমেঃ ২০১০, ২০১৫ ও ২০১৬) এবং ‘ফ্যাটি লিভার ডিজিজ’ (প্রকাশকঃ ম্যাকমিলান পাবলিশার্স, প্রকাশকালঃ ২০১২)।

পাশাপাশি অধ্যাপক স্বপ্নীল মুক্তিযুদ্ধ ও সমসাময়িক বিষয়ে নিয়মিত লেখালেখি করে থাকেন। তার অনুবাদ গ্রন্থ ড. হেনরি কিসিঞ্জারের ‘হোয়াইট হাউজ ইয়ারস’ অবলম্বনে ‘প্রেক্ষাপট ঃ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ’ এবং মেজর জেনারেল (অবঃ) লক্ষণ সিং-এর ‘ভিক্টরি ইন বাংলাদেশ’ অবলম্বনে ‘একাত্তরের বিজয়’ প্রকাশিত হয় সাত সকাল প্রকাশনী থেকে ১৯৯৩ ও ১৯৯৪ সালে। মাওলা ব্রাদার্স প্রকাশ করেছে তার প্রবন্ধ সংকলন ‘সেকাল একালের কড়চা’, ‘এখন সময় বাংলাদেশের’, ‘পথ হারাবে না বাংলাদেশ’, ‘বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ’, ‘কোভিড-১৯’, ‘পদ্মা সেতু – অর্থনীতি উন্নয়ন ও অন্যান্য’ ও ’লিভারের নানা রোগ’ যথাক্রমে ২০১৮, ২০১৯, ২০২০, ২০২১, ২০২২ ও ২০২৩ সালে, মুক্তধারা প্রকাশ করেছে ‘লিভার চিকিৎসায় নতুন সম্ভাবনা’ ২০১৮ সালে আর অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু দ্বিতীয় বিপ্লব এবং রাজনীতির এই সময়’ ২০২৩ সালে। তিনি বাংলা একাডেমির আজীবন সদস্য। পাশাপাশি অধ্যাপক স্বপ্নীল নিয়মিত বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে লিভার রোগ ও সমসাময়িক বিষয়ে টকশোতে অংশগ্রহণ করে থাকেন।

একাধিক শীর্ষস্থানীয় আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক জার্নালের এডিটোরিয়াল বোর্ডের সদস্য অধ্যাপক স্বপ্নীল। তিনি এশিয়ান প্যাসিফিক ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভার কর্তৃক প্রকাশিত হেপাটোলজি ইন্টারন্যাশনালের এসোসিয়েট এডিটর, ইউরোএশিয়ান গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল এসোসিয়েশন কর্তৃক প্রকাশিত ইউরোএশিয়ান জার্নাল অব হেপাটোগ্যাস্ট্রোএন্টারোলজির কো-এডিটর ইন চীফ এবং ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল এসোসিয়েশন ফর স্টাডি অব দ্যা লিভার কর্তৃক প্রকাশিত জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল এন্ড এক্সপেরিমেন্টাল হেপাটোলজির এডিটোরিয়াল বোর্ডের সদস্য।

তিনি ২০১৩ সালে আমেরিকান এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভারের ‘প্রেসিডেন্সিয়াল ডিস্টিংশন’ অর্জন করেন আর ২০১৪ সালে ইউরোএশিয়ান গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল এসোসিয়েশন কর্তৃক ‘অর্ডার অব মেরিট’-এ ভূষিত হন। ভারতের কলিঙ্গ গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল ফাউন্ডেশন তাকে ২০১৫ সালে সম্মানসূচক ‘ব্লুমবার্গ ওরেশন’ প্রদান করে। ২০১৬ সালে তিনি ভারতের চেন্নাইয়ের ভেনাস রিসার্চ ফাউন্ডেশন থেকে ‘ডিসটিংগুইশড সাইন্টিস্ট ইন হেপাটোলজি’ পদক লাভ করেন। ২০১৭ সালের ‘হুজ হু’-তে তার জীবনী অন্তর্ভূক্ত হয়েছে। তিনি ২০১৮-তে মার্ক্ইুস হুজ হু কর্তৃক ‘এলবার্ট নেলসন মার্কুইস লাইফ টাইম এচিভমেন্ট এওয়ার্ড’ এ ভুষিত হন। বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘ তাকে ‘বিশুদ্ধানন্দ মহাথেরো স্বর্ন পদক ২০১৮’ প্রদান করেছে। অধ্যাপক স্বপ্নীল ২০২১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের “বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা দিবস-২০২১” এওয়ার্ড এবং ২০২২ সালে “ভাইস চ্যান্সেলর এওয়ার্ড-২০২২” লাভ করেন।

তবে অধ্যাপক স্বপ্নীলের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ অর্জন দু’টি হচ্ছে কিউবান একাডেমি অব সাইন্সেস কর্তৃক ন্যাসভ্যাক উদ্ভাবনের জন্য ২০১৯-সালে যৌথভাবে ‘প্রিমিও ন্যাশনাল’ পদক এবং বাংলাদেশ একাডেমি অব সাইন্সেস কর্তৃক ‘বাস গোল্ড মেডেল এওয়ার্ড ২০২১’ লাভ।

২০১৮ সালের ১২ জুন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যে ১৫০ জন লিভার বিশেষজ্ঞের স্বাক্ষরিত যুক্ত বিবৃতিটি লন্ডন, প্যারিস ও নিউ ইয়র্ক থেকে একযোগে প্রকাশের মাধ্যমে ‘আন্তর্জাতিক ন্যাশ (ফ্যাটি লিভার) দিবস’ প্রোক্লেইম করা হয় তিনি তাদের অন্যতম। তার উদ্যোগে এই দিবসটি ২০২০ এবং ২০২১ সালে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে ‘বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক ন্যাশ দিবস’ হিসাবে উদ্যাপিত হয়।

এছাড়াও তার গবেষণার স্বীকৃতি হিসেবে তিনি ইন্টারন্যাশনাল এসোসিয়েশন ফর দি স্টাডি অব দ্যা লিভার, ওয়ার্ল্ড গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি অর্গানাইজেশন, এশিয়ান-প্যাসিফিক এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভার, এশিয়া-প্যাসিফিক প্রাইমারী লিভার ক্যান্সার এক্সপার্ট গ্রুপ, জাপান সোসাইটি অব হেপাটোলজি, টার্কিশ সোসাইটি অব হেপটো-বিলিয়ো-প্যানক্রিয়াটোলজি এবং ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল এসোসিয়েশন ফর স্টাডি অব দ্যা লিভার কর্তৃক বিভিন্ন সময়ে পুরষ্কৃৃত হয়েছেন।

কোভিড-১৯ প্যান্ডেমিকে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় অধ্যাপক স্বপ্নীল ওয়ালটন গ্রুপ কর্তৃক ‘হেলথকেয়ার হিরোজ এওয়ার্ড ২০২০’, বাংলাদেশ-আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স কর্তৃক ‘গ্লোবাল বিজনেস সিএসআর এওয়ার্ড ২০২১’, ওয়ার্ল্ড অরগানাইজেশন অব ফ্যামিলি ফিজিশিয়ানস কর্তৃক ‘গ্লোবাল হেলথকেয়ার লিডারশিপ এওয়ার্ড ২০২১’ এবং রোটারি ইন্টারন্যাশনাল কর্তৃক ‘কোভিড-১৯ হিরো’ এওয়ার্ডে ভূষিত হন।

বাংলাদেশের লিভার বিশেষজ্ঞদের জাতীয় সংগঠন এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব লিভার ডিজিজেজ বাংলাদেশের তিনি পরপর চারবার নির্বাচিত জেনারেল সেক্রেটারী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হেপাটোলজি এ্যলুমনাই এসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, এবং ফোরাম ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভার ও জালালাবাদ লিভার ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।

পাশাপাশি তিনি ইউরোএশিয়ান গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল এসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট, সাউথ এশিয়ান এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভারের সাধারণ সম্পাদক, এশিয়ান প্যাসিফিক এসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভারের কার্যকরী সদস্য এবং ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল এসোসিয়েশন ফর স্টডি অব দ্যা লিভারের ইন্টারন্যাশনাল কো-অর্ডিনেটর। তিনি বর্তমানে রোটারি ইন্টারন্যাশনাল ডিস্ট্রিক্ট ৩২৮১-এর হেপাটাইটিস কমিটির চেয়ারম্যান এবং ডিস্ট্রিক্ট ৩২৮১ এবং ৩২৮২-এর ন্যাশনাল পলিওপ্লাস কমিটির সদস্য।

অধ্যাপক স্বপ্নীল বাংলাদেশ স্টেম সেল এন্ড রিজেনারেটিভ মেডিসিন সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। তিনি ইন্টার-একাডেমি পার্টনারশিপের রিজেনারেটিভ মেডিসিন সংক্রান্ত ওয়ার্কিং পার্টির সারা বিশ্ব থেকে নির্বাচিত ১২ জন সদস্যের অন্যতম।

তিনি বাংলাদেশের একজন শীর্ষস্থানীয় ইন্টারভেনশনাল এন্ডোস্কোপিস্ট। তার রয়েছে আড়াই হাজারের বেশি ডায়াগনস্টিক ও থেরাপিউটিক ইআরসিপি, চল্লিশ হাজারের বেশি আপার জি.আই এন্ডোস্কোপি এবং সাড়ে সাত হাজারের বেশি কোলনোস্কোপি করার অভিজ্ঞতা।

পাশাপাশি অধ্যাপক স্বপ্নীল বাংলাদেশে লিভার ক্যান্সার চিকিৎসায় সর্বাধুনিক পদ্ধতি ট্রান্স-আর্টারিয়াল কেমো-এম্বোলাইজেশন (টেইস)-এর পুরোধা। পাশাপাশি তিনি লিভার ফেইলিওরে অটোলোগাস হেমোপয়েটিক স্টেমসেল ট্রান্সপ্ল্যান্টেশন, প্লাজমা এক্সচেঞ্জ ও লিভার ডায়ালাইসিসেরও পথিকৃত। ভয়েস অব আমেরিকা ও বিবিসি বাংলা এ নিয়ে তার সাক্ষাৎকার ú্রচার করেছে।

তিনি বাংলাদেশে প্রথমবারের মত একাধিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন আয়োজনের কৃতিত্বের অধিকারী। এর মধ্যে রয়েছে ২০১৭ সালে প্রথম ‘স্টেমকন’ (স্টেম সেল থেরাপীর উপর আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন) ও ২০১৯ সালে প্রথম ‘এন্ডোভাসকুলোকন’ (এন্ডোসকোপি স্যুইট ও ভাস্কুলার ল্যাব থেকে প্রথম লাইভ সম্মেলন) আয়োজন।

ছাত্রজীবনে অধ্যাপক স্বপ্নীল ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ শাখার কার্যকরী সদস্য (১৯৮৯ থেকে ১৯৯৩) ও সহ-সভাপতি (১৯৯৩ থেকে ১৯৯৫) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ ছাত্র সংসদ (মমেকসু) বাংলাদেশ ছাত্রলীগ মনোনীত প্যানেলে আপ্যায়ন সম্পাদক পদপ্রার্থীও ছিলেন অধ্যাপক স্বপ্নীল (১৯৯৩)। তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যকরী পরিষদের সাবেক সদস্য (১৯৯২ থেকে ১৯৯৪) ও বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের নির্বাচিত সাবেক কেন্দ্রীয় কাউন্সিলর (১৯৯৭ থেকে ১৯৯৯)। অধ্যাপক স্বপ্নীল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক (২০১৬ থেকে ২০১৯ এবং ২০১৯ থেকে ২০২২)। বর্তমানে তিনি ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য (২০১৬ থেকে ২০১৯ এবং ২০১৯ থেকে অদ্যাবধি) এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপকমিটির সদস্য (২০২৩)। তিনি ২০১৯ ও ২০২২ সালে আওয়ামী লীগের ২১তম ও ২২তম জাতীয় কাউন্সিলের কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

পাশাপাশি তিনি সম্প্রীতি বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব (২০১৭ থেকে অদ্যাবধি) এবং একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটির কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক ।

অধ্যাপক স্বপ্নীল হুমায়ুন রশিদ চৌধুরী মেমোরিয়াল কাউন্সিল-এর সহ-সভাপতি এবং জালালাবাদ যুব সম্মাননা পরিষদ-এর কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা। তিনি জালালাবাদ এসোসিয়েশন, ঢাকা’র আজীবন সদস্য।

অধ্যাপক স্বপ্নীল ১৯৭০ সালে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা মরহুম ইঞ্জিনিয়ার মাহতাব উদ্দিন আহমেদ সিলেট জেলার ছড়ারপাড়ে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তিনি সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী ছিলেন।

অধ্যাপক স্বপ্নীল ১৯৯৬ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। স্ত্রী অধ্যাপক নুজহাত চৌধুরী (শম্পা), শহীদ বুদ্ধিজিবী ডাঃ আব্দুল আলীম চৌধুরী এবং শহীদ জায়া বেগম শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী (একুশে পদক প্রাপ্ত)-এর কনিষ্ঠ কন্যা। অধ্যাপক নুজহাত বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চক্ষু বিভাগের অধ্যাপক। অধ্যাপক স্বপ্নীল-শম্পা দম্পতির রয়েছে এক কন্যা ও এক পুত্র সন্তান। দুজনেই অধ্যয়নরত।

মোবাইল : ০১৭১১৫৬৭২৭৫
ই-মেইল:shwapnil@agni.com

আরও পড়ুন..